বোর্ড পরীক্ষায় এ+ পাওয়ার সহজ উপায় এবং টিপস (PEC, JSC, SSC, HSC)

বাংলাদেশের সকল পিএসসি জেএসসি এসএসসি এইচএসসি শিক্ষার্থীদের কমন টার্গেট তাকে পরীক্ষায় এ+ পাওয়া। অনেকের কাছেই A+ পাওয়া পানির মত সোজা আবার অনেকের কাছে কঠিন। এসকল ধারণা শিক্ষার্থীদের সারা বছরের প্রস্তুতি এবংসাধারণকে কতবার ট্যালেন্টপুলে স্কলার্শিপ  মানসিক অবস্থার উপর ডিপেন্ড করে। কেননা যারা ভালো শিক্ষার্থী তাদের টার্গেট থাকে বোর্ড পরীক্ষায় ট্যালেন্টপুলে অথবা সাধারণ গ্রেডে বৃত্তি বা স্কলারশিপ পাওয়া। আবার যাদের প্রস্তুতি এবং মানসিক অবস্থা ভালো না, তাদের টার্গেট থাকে এ+ পাওয়া। তবে এক কথায় প্রায় সবারই কমন টার্গেট থাকে গোল্ডেন এ+ পাওয়া। তাই আজকে এই ব্লগে এ+ পাওয়ার সহজ উপায় নিয়ে আলোচনা করা হবে এবং অনেক টিপস দেওয়া হবে।


বাংলাদেশের সকল বোর্ড পরীক্ষায় সাধারণত বাংলা (১ম পত্র এবং ২য় পত্র), ইংরেজি (১ম পত্র এবং ২য় পত্র), গণিত, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, বিজ্ঞান, ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এই সাতটি বিষয় রয়েছে। সব বিষয় এবং তার বিষয়বস্তু আলাদা হওয়ার প্রত্যেকটির এ+ পাওয়ার  উপায় ও এ+ পাওয়ার টিপসও ভিন্ন। তাই এ+ পাওয়ার সহজ উপায় এবং টিপস আলাদা আলাদা করে নিম্নে দেওয়া হলো। আশা করি তোমরা উপকৃত হবে। 

বোর্ড পরীক্ষায় A+ পাওয়ার উপায়


বোর্ড পরীক্ষায় এ+ পাওয়ার সহজ উপায় এবং টিপস (PEC, JSC, SSC, HSC)


বাংলা (১ম পত্র এবং ২য় পত্র) বিষয়ে এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপসঃ

প্রথমে আসি বাংলা প্রথম পত্রের কথায়। বাংলা প্রথম পত্রের জন্য যেসকল গল্প এবং প্রবন্ধ প্রথমে বুঝে পড়তে হবে। প্রয়োজনীয় তথ্য ও ব্যাখ্যা গুলো মনে রাখতে হবে। আর কবিতা গুলো অবশ্যই বুঝতে হবে। তা না হলে কবিতার জন্য সৃজনশীল প্রশ্ন লেখা অসম্ভব। আর দ্বিতীয় পত্রের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় তথ্য গুলো মুখস্ত রাখলেই চলবে। বেশি বেশি সৃজনশীল লেখার প্রাকটিস রাখা ভালো। এতে হাত চালু হয়। তবে শুধু সৃজনশীল লেখার নিয়ম জানলেই চলে।


ইংরেজি (১ম পত্র এবং ২য় পত্র) বিষয়ে এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপসঃ

ইংরেজি প্রথম পত্রে বোর্ড বইয়ের গুরুত্বপূর্ণ সিন প্যাসেজগুলো অর্থসহ বুঝে পড়া জরুরী। অর্থগুলো একাধিক সিনোনিম বা সমার্থক শব্দ  পড়া উচিত। স্কুল বা কলেজ থেকে যেসকল ইংলিশের গ্রামার বই select  করে দেওয়া হয় সেখান থেকে চিন্তাকে যে প্রয়োজনীয় কোশ্চেন কোশ্চেন answer  এবং mcq  করতে হবে। তবে সবগুলো না শুধুমাত্র গুরুত্বপুর্ণ প্যাসেজ গুলোই ভালোভাবে পড়া উচিত। আর ইংলিশ সেকেন্ড পেপার এর জন্য গ্রামার রুলস এবং পার্টিতে কোন বিকল্প নেই। যত বেশি অ্যাডভান্স টুলস এবং প্র্যাকটিস করা যায় সেই ভালো নাম্বার পাব এবং তার এ+ পাওয়ার চান্স অনেকগুণ বেড়ে যাবে। 


গণিত বিষয়ে এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপসঃ

আমরা জানি পিএসসি ছাড়া বাকি সকল  সকল বোর্ড পরীক্ষায় গণিতে পাটিগণিত এবং বীজগণিত রয়েছে। এছাড়া জ্যামিতি তো রয়েছেই। তাই অংকের ক্ষেত্রে আমার একটাই টিপস এবং এ প্লাস পাওয়ার উপায় হচ্ছে প্রাক্টিস, প্রাক্টিস এবং প্রাকটিস। 

বোর্ড পরীক্ষায় এ+


বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বিষয়ে এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপসঃ

বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বিষয়ে সকল ধরনের সাল এবং তথ্য মুখস্ত করতে হবে এবং কিছু জরুরী পয়েন্ট মুখস্ত করতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ধারণা নিতে হবে যেন যে কোনো ধরনের সৃজনশীল প্রশ্নের উওর লেখা যায়। 


বিজ্ঞান বিষয়ে এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপসঃ

আমরা সবাই জানি পিএসসি বাদে বাকি সকল বোর্ড পরীক্ষায় বিজ্ঞানের  Physics, Chemistry  এবং  Biology থাকে। এসকল বিষয়ে আলাদা আলাদা প্রস্তুতি নিতে হয়। এক্ষেত্রে বেশি বেশি গণিত প্রাকটিস করা, বিক্রিয়া ও সূত্র মুখস্থ করা এবং বায়োলোজির কঠিন কঠিন পাঠ্য বিষয় মনে রাখা এবং মুখস্থ করা ছাড়া কোনো উপায় নেই। 


ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা বিষয়ে এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপসঃ

ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা একটি অত্যন্ত সহজ বিষয় এবং মুখস্থ ভিত্তিক পড়া পড়লেই চলে। আসলে এ বিষয়ে সৃজনশীল প্রশ্নে যত বেশি লেখা যায়  তত বেশি মার্ক  পাওয়া যায়। লেখার মধ্যে নিয়ে কালিগজ এবং বিশেষ বিশেষ উক্তি আরবিতে লেখা অত্যন্ত জরুরী। 


তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ে এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপসঃ

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সবচেয়ে সহজ একটি বিষয়। এখানে বিগত বছরের  আসা অনেকগুলো প্রশ্ন গুলা পড়লেই চলে। একটা প্রশ্ন 3 পৃষ্ঠার বেশি লেখা উত্তম। 


এতক্ষণ আমরা বিষয়ভিত্তিক  এ+ (A+) পাওয়ার উপায় এবং টিপস নিয়ে আলোচনা দেখলাম। এখন আমরা পুরো বোর্ড পরীক্ষার শিক্ষাবর্ষের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করব। 


                        বার্ষিক প্রস্তুতি

বার্ষিক প্রস্তুতিতে  শুরুতে সবার আগে বই পড়তে হবে। সম্পূর্ণ বই পুরোপুরি শেষ করে তারপর গাইড, টেস্ট পেপার ধরতে হবে। বই পড়ার জন্য হাইলাইটার অথবা কালার পেন ব্যবহার করা ভালো। অনলাইনে অনেক পড়ালেখার প্রস্তুতির প্লাটফর্ম আছে। যেমনঃ রবি টেন মিনিট স্কুল।  চাইলে এখান থেকে সাহায্য নেওয়া যেতে পারে। সারাদিন বই নিয়ে বসে থাকলে চলবে না। পড়াশোনার পাশাপাশি অন্যান্য কাজও চলিয়ে যেতে হবে। আমাদের মন রাখতে হবে, জীবনের জন্য পড়াশোনা, পড়াশোনার জন্য জীবন নয়। আমাদের শুধু শেখাটাই মূল কথা। ভালো ভাবে শিখলে ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা করা লাগে না।

ব্লগটি ভালো লাগলে কমেন্ট এবং শেয়ার করবেন।


*

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post

Health

Blogger Templates